সীতাকুণ্ডে জাল কবলা সৃজন করে প্রতিবন্ধী থেকে কমিশনে রেজিষ্ট্রি

0
116

গিরি সৈকত ডেস্ক ঃ
সীতাকুণ্ডে আপন ভাসুরের নির্যাতন থেকে প্রতিকার চেয়ে এবং সহায় সম্পত্তি জাল কবলা করে আত্মসাৎ করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন উপজেলার বাড়বকুন্ড ইউনিয়নের অলিনগর গ্রাামের সমীর কান্তি নাথের স্ত্রী কনিকা দেবী। বুধবার বেলা ১১ টায় সীতাকুণ্ড প্রেসক্লাবে উক্ত সংবাদ সন্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
এসময় লিখিত বক্তব্যে কনিকা দেবী জানান, আমার স্বামী সমীর কান্তি নাথ ২০০৩ সালে রেল দূর্ঘটনায় মারা যায়। এরপর থেকে আমি এক প্রতিবন্ধি ছেলেসহ দুই ছেলেকে নিয়ে অতিকষ্টে দিন যাপন করে আসছিলাম। এ অবস্থায় ২০১৭ সালের ২ ফেব্রুয়ারি আমার স্বামীর বড় ভাই (ভাসুর) পংকজ কুমার নাথ আমার মৃত স্বামীকে জীবিত দেখিয়ে জাল কবলার মাধ্যমে নড়ালিয়া মৌজার ৪০.৩৩ শতক জায়গা ৯৮৭ নং ভুয়া কবলামূলে জনৈক আবু জাফর মোঃ শফিউদ্দীনের নিকট বিক্রি করে। পরবর্তীতে একই জায়গা ১৪ দিন পর ২০১৭ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি সমীর কান্তি নাথের নাবালক ও বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ২ ওয়ারিশ হতে নামজারির কথা বলে জোরপূর্বক কমিশন রেজিস্ট্রির মাধ্যমে ১৩১১ নং কবলা মূলে বিএম এনার্জি লিঃ এর পক্ষে মোস্তাফিজুর রহমানের নামে সৃজন করে। এরপর ২০১৮ সালের ১৯ জুলাই ৩৯৯৫ নং দলিলমূলে ১২ শতকের আরো একটি কবলা সৃজন করে। তিনি একের পর এক ঘটনা ঘটাতে থাকায় সৃজিত ভূয়া কবলার বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতের শরনাপন্ন হয়ে, সি.আর মামলা নং ৩১৩/২০১৯ এবং অপর ২৭৯/১৯ নং মামলা করা হয়েছে।
কিন্তু কবলা বাতিলের মামলা করার পর হতে মামলা তুলে নিতে ভূমি দস্যু পংকজ কুমার নাথ, জসিম উদ্দিন, জাহাঙ্গীর আলম, আজম, সেলিম, ভেন্টার আলমগীর, ভেন্টার জাফর, সামছুল আলম,নাসির বদিউল আলমসহ বিএম এনার্জি লিঃ এর দখলদারেরা নানাভাবে হুমকি ধমকী দিয়ে যাচ্ছে। ভূমিদস্যুদের নানামুখী হুমকী-ধমকীর কারণে বর্তমানে আমি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি। আমি একজন অসহায় নারী, আমি ও আমার দুই ছেলের নিরাপাত্তার চেয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, ম্বর্গীয় সমীর কান্তি নাথের প্রতিবন্ধি পুত্র ,নাবালক ছেলে, ও স্ত্রী কনিকা দেবীসহ গ্রামের গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।